Saturday, December 14, 2013

| নিজের সাথে বোঝাপড়া : তর্কতত্ত্ব |

.
| নিজের সাথে বোঝাপড়া : তর্কতত্ত্ব |
রণদীপম বসু

নিশ্চয়ই খেয়াল করেছেন সবাই, বেশ কিছুকাল যাবৎ এই বঙ্গদেশে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের সংজ্ঞা-বহির্ভূতভাবেই ব্যাঙাচির মতো নতুন একটি শ্রেণী গজিয়ে উঠেছে যাকে বিভিন্নজন বিভিন্ন নামে ডেকে থাকেন। সুজন, সুশীল, নিরপেক্ষ, বিশিষ্ট নাগরিক সমাজ ইত্যাদি ইত্যাদি আরো কতো আলঙ্কারিক নামে। তিনাদের আরেকটা বিশাল যোগ্যতা রয়েছে, তিনারা আবার বুদ্ধিজীবীও ! যদিও আমার অনিরপেক্ষ মুর্খতায় এটা নির্ধারণ করতে অক্ষম হয়ে যাই যে, তারাই যদি বুদ্ধিজীবী হন তো জ্ঞানপাপী বুদ্ধিব্যবসায়ী কাকে বলে !

.
তবে তারা যে নতুন গজিয়েছেন তা কিন্তু নয়। তারা আগেও ছিলেন, কিন্তু ইদানিং তাদের জ্ঞান-গম্যি-চেহারায় হঠাৎ নতুন করে মানবতাবাদের উদ্বেল চিকনাই এতো বেশি বেশি করে গড়িয়ে পড়তে লাগলো যে, আমার মুখ্য-সুখ্য নাকে মনে হচ্ছিলো, চারপাশটা বুঝি ভীষণ দুর্গন্ধময়তায় দমবন্ধ হয়ে আসছিলো। তাদের জৌলুশমাখানো বিদগ্ধ আলোচনা-পর্যালোচনা শুনে এই দুর্বল মস্তিস্কে মানসিক অসুস্থতা আমদানিসহ হালের টিভির টকশোখানাগুলো উপভোগ করার যোগ্যতা তো হারিয়ে ফেলেছি সেই কবেই, তার উপর  নিজস্ব যেটুকু আত্মবিশ্বাস ছিলো তা-ই বুঝি রীতিমতো সন্দিহান হয়ে উঠলো, এতোকাল তবে বই-পুস্তকে ধর্ম-দর্শন-মুক্তিযুদ্ধ-ইতিহাস-বিজ্ঞান-সমাজ-রাষ্ট্র-রাজনীতি-আইন এসব বাহারি  বিষয়ের নামে আসলে যা পড়েছি তা কি ঠিকই পড়েছিলাম ? না কি শুধু শুধু ঘাঁসই কাটলাম জীবনভর !
.
অতএব, নিজের সাথে নিজেরই একটা বোঝাপড়ার দরকার হয়ে পড়লো। এটা আর কিছু নয়, নিজেকে নিজেরই প্রশ্ন করা, নিজের সাথে নিজেরই তর্ক-কুতর্ক করা, কিংবা নিজের অস্তিত্বের নির্লজ্জ কান টেনে ধরে নিজেকেই একটু যাচাই-বাছাই করা। বন্ধুতালিকায় থাকলে সামাজিক সাইটেও বিভিন্ন সময়ে এই উত্থিত প্রশ্নগুলো কারো কারো চোখে পড়তেও পারে এরই মধ্যে। এবং পরে আরো নতুন নতুন প্রশ্নও আসবে হয়তো, তবুও এই স্বীকারোক্তির পাশাপাশি এটাও স্বীকার করে নিচ্ছি যে, নিজের মধ্যে উদ্ভূত এই সাধারণ প্রশ্নগুলো থেকে ভীষণ একটা উপলব্ধিও অর্জন করে ফেলেছি ইতোমধ্যেই। আর তা হলো, ১৯৭১-এর পর এই ২০১৩ সালটাই বাংলার ইতিহাসে আরেকটি অমোচনীয় বছর হয়ে গেছে অনেকগুলো অনিবার্য কারণেই। যার অন্যতম প্রধান কারণ অবশ্যই একাত্তরের মানবতাবিরোধী যুদ্ধপরাধে অভিযুক্ত জামায়াতে ইসলামীর কুখ্যাত ঘাতক কসাই কাদের মোল্লার মৃত্যুদণ্ডাদেশ কার্যকর করার মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতির এক ঐতিহাসিক দায়মুক্তির গর্বিত পথে পা দেয়া। এবং এই শ্বাপদ-সঙ্কুল পর্যায়টিতে পৌঁছাতে গিয়ে পদে পদে বাধাগ্রস্ত করার যাবতীয় ষড়যন্ত্রের সহযোগী হিসেবে বিভ্রান্তি সৃষ্টিকারী এইসব বুদ্ধিব্যবসায়ীর চতুর মানবাধিকার ব্যবসার মুখোশটা সমূলে খশে পড়া । এই ২০১৩ সাল যেভাবে একটানে এই মানবতা-কারবারিদের সহ অনেক অনেক মানব-পশুর চেহারা উন্মোচন করে দিয়েছে, এতোকালের সযত্নে ঢেকে রাখা নিজস্ব লেজটা বের করে দিয়েছে, এদেশের ইতিহাসে আগের একচল্লিশটা বছরেও তা সম্ভব হয়নি। তাই এই বছরটার যোগ্য নামকরণ হতে পারে- ‘২০১৩ : মুখোশ উন্মোচনের বছর’ !
.
আর একারণে নিচের উদ্ভূত অসমাপ্ত প্রশ্নগুলো আসলে তারই গৌড়চন্দ্রিকাই কেবল, রেখায় রেখায় টেনে যাওয়া ওইসব মানবাধিকারবারির উদ্দেশ্য ছুঁড়ে দেয়া ঘৃণার অক্ষর ! অতএব, পাঠক হিসেবে যে-কেউ এখানে আরো অসংখ্য প্রশ্ন জুড়ে দিতে পারেন নির্দ্বিধায় ! তাহলে আসুন একটু চেষ্টা করা যাক্ !-
.
তর্কতত্ত্ব-০১
কোনটা বেশি জরুরি- গণতন্ত্র, না কি একটা দায়িত্বশীল ভালো সরকার ?
ভালো সরকার মানে কী ? এটা কিভাবে নির্ধারণ হয় ?
গণতান্ত্রিক নির্বাচন কি আদৌ কোন ভালো সরকার গঠনের নিশ্চয়তা দিতে পারে ?
.
তর্কতত্ত্ব-০২
নির্লজ্জতা আর নিরপেক্ষতা কি এক ? কেন নয় ?
তাহলে নিরপেক্ষতা মানে কী ? কিভাবে তা নির্ধারণ হয় ?
একজন অপরাধী ও একজন নিরপরাধীকে সমান ও অভিন্ন দৃষ্টিতে দেখা কি নিরপেক্ষতা ?
নাকি খারাপ লোকের বিরল ভালোগুলো এবং ভালো লোকের কেবল ছিটেফোটা নগন্য মন্দগুলো খুঁজে এনে ককটেল বানিয়ে বাজারে তোলাই নিরপেক্ষতা ? নিরপেক্ষতা কি তবে কোন বিপুল বাাণিজ্যের নাম ?
তথাকথিত ঈশ্বরও কি নিরপেক্ষ ?
.
তর্কতত্ত্ব-০৩
মানবতা মানে কী ? মানবতার সংজ্ঞা কী ?
মানবতা কি অমানুষের জন্যে প্রযোজ্য ?
যদি তা না হয়, তাহলে তথাকথিত মানবতাবাদীরা জঘন্য খুনি অমানুষদের জন্য মানবতার আবেগ দেখিয়ে ডুকরে উঠেন কেন ? এবং-
যে দেশে মৃত্যুদণ্ডের বিধান নেই, সেসব দেশের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বা সেনা বাহিনীর হাতে এতো এতো মারণাস্ত্রের বদলে গোলাপফুল ধরিয়ে দেয়া হয় না কেন ?


1 comment:

kaisarahmed said...

ধন্যবাদ,লেখাটা পড়ে ভালো লাগলো | আমি আপনাকে কোন প্রকার অফার করছি না। আমার মানে হয় এই ছোট তথ্যটি আপনার উপকারে আসতে পারে অ্যাপার্টমেন্ট ভাড়া।